ট্রাভেলিং খেলনা

ট্রাভেলিং খেলনা, শিশুর আনন্দময় ভ্রমনের প্রধান উপকরণ।

ছোট সোনামণিকে নিয়ে ট্রাভেল করা মোটেই সহজ কাজ না! আমরা বড়রাই যেখানে ঘন্টার পর ঘন্টা গাড়িতে বসে থাকলে একঘেয়েমিতে পেয়ে বসে সেখানে সোনামণি তো দুধের বাচ্চা। তাই ভ্রমণ করার সময় কিছু খেলনা সাথে নিয়ে নেয়া উচিত। গাড়িতে বসে থাকা অবস্থায় বাচ্চাকে আনন্দিত রাখতে একটা মজার খেলনা তুলে দিন হাতে। এটা একদিকে সোনামণিকে একটা আনন্দময় ভ্রমণ উপহার দিবে, অন্যদিকে শিশু আনন্দে থাকলে এমনিতেই বাবা মায়ের ভ্রমণটা ও মজার হবে।  

ভ্রমন / ট্যুরে যাওয়ার সময় আপনি কি কি খেলনা নিতে পারেন তা নিয়েই আজকের আর্টিকেলটি। 

➽ খেলনা মোবাইল 

সোনামণিরা তাদের বা মায়ের ফোন দিয়ে খেলা করতে চায়। ট্রাভেল করার সময় এটা হতে পারে একটা বেস্ট সমাধান। সোনামণিকে একটা খেলনা ফোন কিনে দিন, মিউজিক থাকার কারণে এটি শিশুর মনোযোগ ধরে রাখবে, এতে করে সে কান্নাকাটি ও করবে না। তবে এরকম টয় কেনার ক্ষেত্রে মাথায় রাখতে হবে যে খুব উচ্চ মিউজিক ভলিউম এর কোন টয় কেনা যাবে না। এতে বাচ্চার শ্রবণ শক্তির ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। আবার আরেকটা কাজ ও করতে পারেন। নাম্বার প্রেস করে আসল মোবাইল এর মত ডায়াল করতে করতে আপনার মোবাইল নাম্বারটাও মুখস্ত করিয়ে ফেলতে পারবেন।  

বিভিন্ন এনিমেল শেপের ব্যাগ 

ভাবুন তো আপনি যখন কোথাও ভ্রমনে / বেড়াতে যান তখন আপনার সাথে কি থাকে?? জামা কাপড়ের ট্রলি ব্যাগ, পানির বোতল, হালকা খাবার ছাড়াও আরও কত কি! গাড়িতে বসে আপনি এত কিছু সামলাবেন নাকি বাচ্চা সামলাবেন? জানেন তো যে  বাচ্চারা সবসময় বাবা মায়ের কাজ ফলো করে। তাই আপনার ছোট্ট সোনামণির জন্য কিনে দিন একটা এনিমেল শেপ ব্যাগ। এর ভিতরে তাঁর পানির পট, ২-১ টা ড্রেস, হালকা খাবার রেখে দিতে পারেন। এতে করে সোনামণির মধ্যে একটা আনন্দ কাজ করবে যে তার জিনিসপত্র তার ব্যাগে এবং গাড়িতে বসে সে এটা নিয়ে খেলতে ও পারবে।  

➽ লিসেনিং টয় 

ভ্রমণে আমরা সবাই গান শুনতে পছন্দ করি। তাহলে সোনামণি কেন বাদ যাবে এই আনন্দ থেকে। বাচ্চাদের উপযোগী একটা হেডফোন নিয়ে নিন যাওয়ার সময়। শিশুর পছন্দের প্লে-লিস্ট টি বাজিয়ে দিন। দেখুন শিশু কোন রকম বিরক্ত করা ছাড়াই মজা করে গান শুনছে। তবে এই ক্ষেত্রে একটা কথা অবশ্যই মনে রাখা উচিত যে ২ বছরের কম বয়সী শিশুদের কোন ভাবেই হেড ফোনে গান শুনতে দেয়া উচিত না। আর এর চেয়ে বড় শিশু হলে তাকে লো ভলিউমে গান শুনতে দিন।      

➽ ড্রয়িং টয় 

বিজ্ঞানীরা বলে ড্রয়িং বাচ্চাদের কল্পনা শক্তি বৃদ্ধি করে। বাচ্চারা তাদের আশেপাশের অবজেক্ট দেখেই কল্পনা করে থাকে। তাই যেকোনো রোড ট্রিপে যাওয়ার ড্রয়িং কিট সাথে নিয়ে যান। সোনামণি আশাপাশের প্রকৃতি দেখতে দেখতে যাবে আর বাস্তব ও কল্পনার মিশেলে করবে মজার মজার ড্রয়িং।  

➽ নানা রকম স্টিকার    

ভ্রমন করার সময় স্টিকার একটা পারফ্যাক্ট অনুষঙ্গ। আর আপনার সোনামণি যদি জানালার পাশের সিটে বসে তাহলে তো কথাই নেই। গাড়ির জানালায় স্টিকার লাগাতে পারবে। অথবা যেখানে ঘুরতে যাবে সেখানে। মোটকথা ছোট ছোট এলিমেন্ট দিয়ে শিশুকে আনন্দ দিতে পারলে সেও আনন্দ নিয়ে ট্রাভেল করতে পারবে। 

আপনার ও সোনামণির পরবর্তী ভ্রমন সুন্দর এবং আনন্দময় হোক এই শুভকামনা।